১৬ মে , ২০২১, রবিবার

সামসি কলেজ রবীন্দ্রজয়ন্তী
গোপীনাথ মণ্ডল
গোপীনাথ মণ্ডল

পঁচিশে বৈশাখ কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্ম দিবস। এ’বছর কবিগুরুর ১৬০তম জন্মদিবস পূর্তি উৎসব। বাঙালির সাংস্কৃতিক উৎসবের দিন। প্রতিবছর মাসখানেক আগে থেকে কত তোড়জোড়, সপ্তাহব্যাপী রবীন্দ্রজয়ন্তী পালন উৎসব। কিন্তু, অতিমারি করোনার প্রকোপে পরপর দু’বছর তার ছন্দ পতন হয়েছে । তা সত্ত্বেও কি শৈল্পিক বাঙালির আবেগকে থামিয়ে দেওয়া যায়? সামসি কলেজের বাংলা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্যোগে এবং বিভাগীয় প্রধান ড. মনোজ ভোজের সম্মতিক্রমে একটি ভার্চুয়াল অনুষ্ঠান করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় । স্বল্প সময়ে একটি বিজ্ঞাপন করে ফেসবুক, হোআটসঅ্যাপ-এর বিভিন্ন গ্রুপে দেওয়া হয়।

তারপর ২৫ বৈশাখ সকাল ১০ টায় গুগোল মিটে একে একে বর্তমান ও প্রাক্তন ছাত্রছাত্রী মিলিয়ে প্রায় একশ’ জনের যুক্ত হওয়া। ভার্চুয়াল এই অনুষ্ঠানে সভাপতির পদ অলংকৃত করেন ডক্টর মনোজ ভোজ। তৃতীয় বর্ষের বাংলা বিভাগের ছাত্র ওবাইদুর রহমান স্বাগত ভাষণে জানান, এই আতিমারিতে সকলে সশরীরে একত্রিত হতে না পারলেও সকলেই যেন অনুষ্ঠানের শেষ পর্যন্ত থেকে সাফল্যমণ্ডিত করেন। অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা হয় সামসি কলেজ নাট্যপ্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সদস্যা বাংলা বিভাগের প্রাক্তন ছাত্রী পূর্বা সরকারের কন্ঠে “নুপুর বেজে যায় রিনি রিনি” রবীন্দ্র সংগীতের মধ্য দিয়ে। সুচনা পর্বেই তবলা- হারমোনিয়াম সহযোগে ভার্চুয়ালি এই উদ্বোধনী সংগীত পরিবেশন সকলের হৃদয়ে কবিগুরুর জন্মজয়ন্তী পালনে নব উন্মাদনা সৃষ্টি করে।

অনুষ্ঠান এগিয়ে চলে আবৃত্তি, সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে। ফার্স্ট সেমিস্টার, বাংলা বিভাগের ছাত্রী আরিফা খাতুনের মধুর কন্ঠে “তোমার খোলা হাওয়া লাগিয়ে পালে “ গানটি অপূর্ব ভাবে পরিবেশিত হয়। কলেজের প্রাক্তন ছাত্র পরশুরাম রজকের কন্ঠে “সোনার তরী” কবিতার আবৃত্তি মনমুগ্ধকর পরিবেশ সৃষ্টি করে । অনুষ্ঠানটি চলতে চলতে হঠাৎ আকাশে মেঘ, বিদ্যুৎ গর্জন এবং ঝড় আসে। অনেকের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়, ঠিক তখনই বাচিক শিল্পী ফাতেমা খাতুনের খালি কন্ঠে “তুমি সন্ধ্যার মেঘমালা” সংগীত পরিবেশনে অনুষ্ঠানে প্রাণ ফিরে পায়। তারপর কলেজের প্রাক্তন ছাত্রী প্রীতিলতা ঝায়ের কবি সম্পর্কিত রসিক বক্তৃতায় মেতে ওঠেন সকলেই। তার ছোট্ট মেয়ে অদ্রিজা চক্রবর্তীর কচি সবুজ কণ্ঠে রবীন্দ্র কবিতার আবৃত্তি আপ্লুত করে। তাছাড়া প্রাক্তন ছাত্র প্রবীর মণ্ডলের কন্ঠে শোনা যায় রবীন্দ্র সংগীত, মহ: সাহাবুদ্দিনের গলায় রবীন্দ্র কবিতার আবৃত্তি , সীতাদেবী বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রী আফরোজা খাতুনের কণ্ঠে একটি রবীন্দ্র সংগীত। ফাতেমা খাতুনের মনোরম কণ্ঠে কবিগুরুর “এক গাঁয়ে” কবিতাটি –
আমরা দুজন একটি গাঁয়ে থাকি,
সেই আমাদের একটিমাত্র সুখ। …

জাকির হোসেন একটি রবীন্দ্র চিত্রাঙ্কন করেন। এই ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানের শেষ লগ্নে সভাপতির ভাষণে ডক্টর মনোজ ভোজের বক্তব্যে ব্যাখ্যাত হয় “আমরা সকলেই পঞ্চ ইন্দ্রিয়ের অধিকারী। কিন্তু যারা শিল্প-সাহিত্য,চারুকলা ইত্যাদির সাথে নিজেকে যুক্ত রেখে জীবনকে অতিবাহিত করেন, তারা পঞ্চ ইন্দ্রিয় ছাড়াও ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়ের অধিকারী। তিনি আরোও জানান, তৃতীয় বর্ষের ছাত্রছাত্রীদের উদ্যোগ এবং স্বল্প সময়ে নবীন-প্রাক্তনদের পুনর্মিলন সাহিত্য শিল্পকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবে। নবীন প্রাক্তনের ভার্চুয়ালি এই রবীন্দ্রজয়ন্তী উদযাপনে শুধুই যোগাযোগ স্থাপন নয় হৃদয়ের মিলন স্থাপন হয়। অনুষ্ঠানের শেষ অবধি কলেজের ছাত্রছাত্রী, অধ্যাপক-অধ্যাপিকা ও প্রাক্তনীদের উপস্থিতি এবং তৃতীয় বর্ষের ছাত্র আবুল বরকতের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানটি আরোও নবমাত্রা পায়।

সাম্প্রতিক পোষ্ট
সাড়ে চুয়াত্তরের কেদাররূপী ভানু বন্দ্যোপাধ্যায়ের “মাসিমা মালপোয়া খামু” র অনবদ্য হ্যাংলামো আমাদের ভেতরে স্বতঃজাগরূক। ওটা সহজেই মাসিমা আইচকিরিম খামু হতে পারে… সারাজীবনে কতবার যে চেয়েছি সেটা।

হারিয়ে যাওয়া ফেরিওয়ালারা- যশোধরা রায়চৌধুরী

Read More »
কাজী নজরুল ইসলাম ও একটি নির্বাচনী লড়াই। নির্বাচনের প্রাক্কালে এক শ্রেণির মুন্সি-মৌলভীরা কবিকে কাফের অপবাদ দিতে শুরু করল। ভোটের লড়াইয়ে মরিয়া কবি তখন এর জবাবে ইসলাম ধর্ম ও ঐতিহ্যকে ভিত্তি করে প্রচুর গান, গজল ও কবিতা রচনা শুরু করলেও তেমন সুবিধা হল না।

৩০ মে, ২০২১ , রবিবার কবি কাজী নজরুল ইসলাম ও

Read More »