নববর্ষ সংখ্যা, ৪ বৈশাখ, ১৪২৮, রবিবার

কবিতা
সুমিতাভ মণ্ডল
উপাখ্যান ফিরে এলে

কানাঘুষা থেকে পরিপাটি যোজনার আঁচ পেয়ে গেলে
এক এক করে খুলতে খুলতে গৃহস্থালি বেড়া, অজান্তে কখন
পলকা চটা আধুলিতে বিকিয়ে যায়; যতটুকু
অমঙ্গলের বাঁশি ত্রিতালের ঠেকা গুনে মূর্ছনা ফিরে আসে,
গলিপথে বর্ষার কাদা পিছল ততটুকু!
আমার পাগলা কুকুর ক্যানাইন ঢেকে শোনে মদালসার উপদেশ!

ষোলটি ন্যায়ের উষ্ণীষ নামিয়ে রেখে সৌজন্য দেখিও!
যদি পারো, ঋতধ্বজের রাজদণ্ড হারিয়ে গেলে
গান শুনো, দিক্ষা নিও, শুদ্ধ ঘুম! কোলের আদরে।
যদি পারো, অনাদরে বড় হও।   শেখো সাঁতরে পেরোনো;
কিভাবে বাঁশের ফাঁপা, গিঁটে গিঁটে জীবনের মেরুদন্ড হয়,
সেই ধ্রুপদী লয়ে হারিয়ে দেখ — বনষ্পতি নিরাকার।

যে অবকাশে নট-নটী যত জাগিয়ে রেখেছে এই গাঁ,
আত্মহত্যার বিষপান করছে সে পদাবলী এখন।

সাম্প্রতিক পোষ্ট