সুদীপ ঘোষাল

বর্ষামায়া

চন্ডীদাসের মত ছিপ ফেলে বিপিন, বৌটার উবু হয়ে  মাছ ধরা দেখছে, ফাতনার কথা ভুলে। জেলেবৌ গুগুলি আর  ঝিনুক জড়ো করছে আঁচলে, জলের তলা থেকে।  তার সুডৌল স্তন ঝুঁকে পড়েছে জল ছুঁয়ে। জলরসে ডুবিয়ে দিচ্ছে যুবতীহৃদয়। বিপিন দেখে, ভিজে নিতম্ব আঁকে  খাজুরাহের ছবি। বিপিন ভাবে ঝিনুক, গুগুলির মাংস জেলেবৌকে প্রেম সোহাগী করে তুলেছে কোমল দেহসৌষ্ঠবের মাধ্যমে। পুকুরের পাড়ে গাছ গাছালির স্নেহচ্ছায়া। বর্ষাদয়ায় ছায়াদুপুর হয়ে উঠেছে বসন্তমায়া।  অদৃশ্য মায়ায় বৌটি মাঝে মাঝে তাকায় বিপিনের দিকে। কেউ কোথাও নেই। দুপুরের অবসরে জেলেবৌ কুড়োয় টুকরো ভালবাসা। অলস স্বামীর খপ্পরে পরে, বিবাহিত জীবনে পরকীয়া প্রকট হয়ে ফুটেছে। 
বিপিন তার পাড়ার পালোয়ান যুবক।  ছিপ নিয়ে বসে থাকে এই সময়ে, জেলেবৌকে দেখার লোভে। সুন্দরী জেলেবৌ ভোলে না এই বরষার মায়া । কি বর্ষা, কি শীত  দুজনের বসন্তমায়া কেড়ে নিতে পারে না। 

সাহসী দুপুর জলে নেমেছে। জেলেবৌ কাপড় ঝেড়ে জলে ধুয়ে নিলো। প্রেমে ডুবলো আকন্ঠ শীতল জলের আড়াল। জলে  চলে জলকেলি।  পানকৌড়িটা ডুবে ডুবে মাছ খাওয়ার কৌশল শেখায় দুজনকে। পাড়ে উঠে ছিপ ডাঙায় তোলে  বিপিন। দেখে একটা বড় রুই ধরা পড়েছে বঁড়শিতে। 
জেলেবৌ সোহাগী আঁচলে তুলে নেয় বিপিনের সমর্পিত প্রেম…

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সাহিত্যিক বিভাস রায়চৌধুরীর সাক্ষাৎকার

X